অযুর দোয়া বাংলা উচ্চারণসহ নিয়ত, নিয়ম ও ওযুর শেষের দোয়া

আপনারা সবাই অযুর দোয়া, নিয়ত ও নিয়ম জানতে চাচ্ছেন। আমাদের ওয়েবসাইটে অযুর দোয়া ও নিয়ত ও নিয়ম দেওয়া আছে। আপনারা সেটা নিচে গিয়ে দেখে নিতে পারবেন। আর ওযুর নিয়ত নিয়ম এবং দোয়া সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা পাবেন। তো চলুন নিচে গিয়ে দেখে নেয়া যাক আপনারা কিভাবে ওযুর নিয়ম পালন করবেন। ওযুর নিয়ত করবেন এবং ওযুর জন্য যে দোয়া করতে হয় সেটি করবেন। পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে সম্পর্কিত তথ্যগুলো জানা সকলেরই জরুরী।

অযুর দোয়া ও নিয়ত নিয়ম

একজন মুসলিম খুব নিষ্ঠার সঙ্গে নামাজ আদায় করলেন। কিন্তু তার ওযুর জন্য তিনি দোয়া করেন নি এবং অজুর জন্য যে নিয়ম সেটাও তিনি মানেননি। সে ক্ষেত্রে তার নামাজ সহিহ ভাবে আদায় হবে না। নামাজের আদায়ের মূলকথা হলো সুন্দরভাবে এবং নিয়ম অনুসারে ওযু করতে হবে।

তাই আপনারা যারা ওযুর নিয়ম ব যারা জানেন না তারা আমাদের এই পোষ্টের মাধ্যমে জেনে নিন। আর আপনাদের প্রতিদিনের জন্য আল্লাহর প্রতি যে ইবাদত-বন্দেগী করবেন। সেটার জন্য এটি খুবই সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

ওযু কি

অজু হল নামাজের আগে বা কোন পবিত্র কাজের আগে শরীর এবং মনের পরিশুদ্ধতা গ্রহণ করা। ওযুর ফরজ চারটি। এই চারটি ফরজ মেনে যদি আপনি ওজু করতে পারেন তাহলে আপনার সকল কাজে বরকত আসবে। ওযু করার মধ্য দিয়ে শরীর এবং মনের পবিত্রতা অর্জন করা যায়।

মন ফুরফুরে থাকে মনে। প্রশান্তি আসে এবং যে কাজ করা যায় সেই কাজে সফলতা অর্জন করা যায়। তাই নামাজ পড়া, কোরআন শরীফ তেলাওয়াত করা এবং অন্য কোন পবিত্র কাজে আপনারা অজু করুন।

ওযু করার সঠিক নিয়ম

ওযু করার সঠিক নিয়ম যদি আপনারা জানতে চান তাহলে এই পোস্টটি ভাল করে পড়ুন। আপনি যদি সহীহভাবে এবং সঠিকভাবে ওযু করতে চান তাহলে আপনাকে প্রথমে ওযুর নিয়ত করতে হবে। এজন্য আপনি প্রথমে বিসমিল্লাহ বলে ওযু শুরু করলেন। উভয় হাতের কব্জিসহ আপনাকে তিনবার ধৌত করতে হবে। তারপরে আপনি যদি উভয় হাতের আঙ্গুলগুলো খিলাল করেন তাহলে খুবই ভালো।

এক্ষেত্রে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম মেসওয়াক করার কথা বলেছেন। আর ওযুর সময় তিনবার মেসওয়াক করা সুন্নত। এই মেসওয়াক করে নেওয়ার পর আপনি তিনবার কুলি করে নেবেন। একইভাবে তিনবার নাকে পানি দিয়ে দিবেন। এরপর সমস্ত মুখ আপনি তিনবার ধোবেন।

মুখমন্ডল যেন ধৌত হয় পুরোপুরিভাবে সেদিকে খেয়াল রাখবেন। ডান হাত এবং বাম হাতের কনুইসহ আপনারা আবার তিনবার করে ধৌত করবেন। তারপরে সমস্ত মাথা একবার মাসাহ করতে হবে। কান মাসাহ করবেন। তার সাথে সাথে সবগুলো সম্পূর্ণ হয়ে গেল। আপনারা ডান পায়ের টাখনুসহ এবং বাম পায়ের টাখনুসহ তিনবার ধৌত করবেন। দুই পায়ের আংগুলের মধ্যখানে খিলাল করবেন। এভাবে আপনি আপনার ওযু সম্পন্ন করতে পারবেন।

ওযু করার দোয়া

অজু করতে হলে আপনাকে দোয়া করতে হবে। কারণ ওযুর যদি আপনি দোয়া পড়েন তাহলে এটি খুবই উত্তম। আর এই দোয়া পড়তে পারলে আপনি অনেক সওয়াবের অধিকারী হবেন। আমাদের ওয়েবসাইট থেকে আপনারা ওযুর দোয়া দেখে নিন। যখন অযু করবেন তখন এই দোয়াগুলো পাঠ করবেন। শেষে আকাশের দিকে তাকিয়েও দোয়া করা যায়। আপনারা সেই দোয়াগুলো করতে পারেন।

ওযু করার নিয়ত

ওযু যেহেতু মনের পরিশুদ্ধি এবং আত্মার পরিশুদ্ধি, তাই আপনাকে ওযু করার জন্য মনে মনে নিয়ত করতে হবে। সে নিয়ত হতে হবে আল্লাহর উদ্দেশ্যে। অর্থাৎ আপনি একটা ভালো কাজের জন্য অজু করছেন।

Dua Qunoot Bangla PDF Free Download দোয়া কুনুত বাংলা উচ্চারণ সহ

তারাবির নামাজের দোয়া, নিয়ত, মুনাজাত এবং নিয়ম ২০২১

অযুর/ওযুর দোয়া, নিয়ত, নিয়ম ও ওযুর শেষের দোয়া

Ojur Doa, Niyat, Niom in Bangla (ওযু করার দোয়া, নিয়ত ও নিয়ম)

Tarabi Namaz Dua, Niyat, Munajat & Niom in Bangla 2021

সেই কাজটি যেন সুন্দরভাবে এবং সফলভাবে সম্পন্ন হয় সেই নিয়াতে মনে মনে করবেন। এতে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করা যাবে। তাই আপনারা ওযু করার সময় ওযুর নিয়ত মনে মনে করে ফেলুন।

কিভাবে অজু করতে হয়?

কিভাবে অজু করতে হয়? তার মানে আপনি একেবারে জানেন না ওযু কিভাবে করতে হয়। তার জন্য জেনে নিন যে এভাবে অজু করতে হয়। ওযু করার কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম কানুন আছে। যেগুলো আপনাকে মানতে হবে। আর ওযু করতে হবে। আপনাকে পানির মাধ্যমে।

তাই প্রথমে আপনাকে আগে পবিত্র জায়গায় পরিষ্কার পানি সংগ্রহ করতে হবে। পানি সংগ্রহ করার পর আপনারা উল্লেখিত নিয়ম অনুসারে অজু করতে পারবেন। সেজন্য আপনাদের দুই হাতের কব্জি পর্যন্ত ধরতে হবে। কুলি করতে হবে। নাকের ভিতরে পানি পৌঁছাতে হবে।

পুরো মুখমণ্ডল ধুতে হবে। দুই হাতের কব্জি পর্যন্ত ধুতে হবে। মাথা মাসেহ করতে হবে। পা ধৌত করতে হবে। এভাবে আপনারা ও সম্পন্ন করতে পারবেন। আপনারা যদি উপরে উল্লেখিত তথ্য পড়েন তা হলে ওযু সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা পাবেন।

ওযু করার নিয়মাবলী ও দোয়া

ওযুত মানেই নামাজের প্রস্তুতি গ্রহণ। তাই আপনাদের ওযুর নিয়মাবলি জানতে হবে। তার সাথে আপনাদের ওযুর দোয়া ও করতে হবে। যদি আপনারা ওদের সঙ্গে নিয়মাবলী জানেন এবং সে অনুযায়ী দোয়া করেন। তাহলে আপনাদের অজু সুন্দরভাবে সম্পন্ন হবে।

ওযু করার নিয়মগুলিতে নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন “যে ব্যক্তি পূর্ণ ভাবে ওযু করা শেষে কালেমা শাহাদাত পাঠ করবে, তার জন্য বেহেশতে আটটি দরজা খুলে যাবে। সে যে দরজায় ইচ্ছা প্রবেশ করতে পারবে।” তাহলে আপনারা আমাদের ওয়েবসাইট থেকে ওযু করার নিয়মাবলী ও দোয়া জেনে নিন।

ওযু করার পদ্ধতি

নামাজ বা কোন প্রকৃত কাজ অর্জনের জন্য অজু করা বাধ্যতামূলক। তাই আপনারা ওযুর পদ্ধতি আমাদের ওয়েবসাইটের উপরে দেওয়া তথ্য অনুসারে মেনে চলুন। উপরে উল্লিখিত নিয়ম অনুসারে আপনার ওযু করার পদ্ধতি জেনে নিন। অযথা একটিব নামাজের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। তাই এটিকে সহীহ শুদ্ধভাবে করা প্রতিটি মুসলিমের উচিত।

ওযু করার পদ্ধতি অনুসরণ করে আপনারা যোগাযোগ করেন। তারপরে কালেমা শাহাদাত পাঠ করেন। তাহলে আপনাদের জন্য জান্নাতের আটটি দরজা খোলা হয়ে যাবে।

যেহেতু অজু একটি নামাজের গুরুত্বপূর্ণ শর্ত সেহেতু এটি ফজিলত এর দিক থেকেও গুরুত্বপূর্ণ। তাই এটাকে মেনে চলুন। আর যথাযথভাবে এবং সহিহভাবে সুন্দর ভাবে ওযু করে নিন।

পবিত্র মাহে রমজানকে সামনে রেখে আপনারা মনের ভেতর থেকে ভালো মানুষ ঠিকই বের করে।

আমার নিজের সুখের জন্য মহান সৃষ্টিকর্তা রাব্বুল আলামিনের কাছে সপে দিন। বিভিন্ন ধরনের ইসলামিক পোস্ট আমাদের ওয়েবসাইটে নিয়মিত করা হবে। আপনারা এই নিয়মিত ইসলামিক পোস্ট পেতে আমাদের ওয়েবসাইট

ওযুর শেষের দোয়া

Exit mobile version